অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০২০: তরুণ লেখকদের জয়জয়কার

132

গত কয়েক বছর ধরেই মেলার চিত্র পাল্টে গেছে। প্রবীণ ও জনপ্রিয় লেখকদের অনেকেই নিয়মিতভাবে লিখছেন না। তাদের বইও প্রকাশ হচ্ছে কম।

সেদিক থেকে অনেকাংশে এগিয়ে তরুণ লেখকরা। তারা নিয়মিতভাবে লিখে চলেছেন। শুধু গল্প, কবিতা বা উপন্যাস নয়, তারা লিখছেন নানা বিষয়ে। ভ্রমণ, খেলাধুলা, বিজ্ঞান, আত্মোন্নয়ন, অনুবাদ সাহিত্য- সব বিষয়ই।

শুধু তাই নয়, তাদের লেখা সেসব বই বিক্রিও হচ্ছে বেশ। আর তরুণ লেখক হিসেবে অনেকে ইতিমধ্যে প্রতিষ্ঠিতও হয়েছেন। তাদের বই মেলায় তো বটেই, সারা বছরই বিক্রি হয়। সব মিলিয়ে এখন তরুণ লেখকদের জয়জয়কার। সেটা মেলায়ও।

এই সময়ের তরুণ লেখকদের মধ্যে বহুল পঠিত এক নাম স্বকৃত নোমান। তিনি তরুণ লেখকদের অবস্থান নিয়ে বলতে গিয়ে যুগান্তরকে বলেন, প্রবীণ লেখকদের অনেকেই এখন নিয়মিত নন। গত কয়েক বছরে সেই জায়গাটি পূরণ করেছেন তরুণ লেখকরা। তারা শুধু উপন্যাস নয়, গল্প, কবিতা, গবেষণাধর্মী গ্রন্থ, অনুবাদ- সব জায়গায় নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তাদের বইও বিক্রি হচ্ছে প্রচুর।

সময়ের আরেক জনপ্রিয় লেখক কবি পিয়াস মজিদ বলেন, আক্ষরিক অর্থেই তরুণদের জয়জয়কার চারদিকে। তারা কবিতা, গল্প, উপন্যাস, অনুবাদ- সব জায়গায় ভালো করছেন।

বিজ্ঞানের বইয়ে তো তরুণরা এখন সবচেয়ে এগিয়ে। আর পাঠকরাও খুঁজে খুঁজে ঠিকই তাদের বইগুলো পড়ছেন। সবচেয়ে বড় কথা- তরুণদের বিশাল পাঠক তৈরি হয়েছে। এই সময়ের আরেক খ্যাতিমান লেখক মোজাফ্ফর হোসেন। তিনি যুগান্তরকে বলেন, তরুণ লেখকরা বাণিজ্যিক এবং লেখার মান- দুটো জায়গায়ই মূলধারায় চলে এসেছে। এমনকি সিরিয়াস সাহিত্যচর্চা থেকে গবেষণা- সব জায়গায়ই তরুণদের অবস্থান এখনও সুদৃঢ়। তাদের বই বিক্রিও হচ্ছে প্রচুর।

বইমেলায় তরুণ সাহিত্যিকদের আসা উল্লেখযোগ্য কিছু বইয়ের মধ্যে রয়েছে পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স থেকে স্বকৃত নোমানের গল্পগ্রন্থ ‘বানিয়াশান্তার মেয়ে’, একই লেখকের প্রবন্ধের গ্রন্থ ‘টুকে রাখা কথামালা’ এনেছে বিদ্যাপ্রকাশ।

মোজাফ্ফর হোসেনের উপন্যাস ‘তিমিরযাত্রা’ এনেছে পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স, জয়দীপ দে’র উপন্যাস ‘কাসিদ’ এনেছে দেশ পাবলিকেশন্স। মাহবুব ময়ূখ রিশাদের ‘আরিমাতানো’ এনেছে চন্দ্রবিন্দু। একই প্রকাশনা থেকে প্রকাশ হয়েছে রাসেল রায়হানের উপন্যাস ‘অমরাবতি’, হামিম কামালের উপন্যাস ‘জাদুকরী ভ্রম’।

পাঠক সমাবেশ এনেছে পিয়াস মজিদের কাব্যগ্রন্থ ‘দুপুরের মতো দীর্ঘ কবিতা’, অন্যপ্রকাশ এনেছে সাদাত হোসাইনের দুই উপন্যাস ‘মেঘেদের দিন’ ও ‘মরণোত্তম’, বাংলা একাডেমি এনেছে একই লেখকের ‘মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু ও বাংলা একাডেমি’, প্রথমা প্রকাশ করেছে আলতাফ শাহনেওয়াজ কবিতার বই ‘সামান্য দেখার অন্ধকারে’, অন্যপ্রকাশ এনেছে নওশাদ জামিলের চতুর্থ কবিতার বই ‘প্রার্থনার মতো একা’, একই প্রকাশনা থেকে এসেছে হক ফারুক আহমেদের দ্বিতীয় কবিতার বই ‘মেঘদরিয়ার মাঝি’। পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স থেকে প্রকাশ হয়েছে হক ফারুক আহমেদের গল্পগ্রন্থ ‘শহরে দেবশিশু’। বর্ষাদুপুর প্রকাশ করেছে শরাফত আলীর কবিতার বই ‘কবিতা ২৫’।

গ্রন্থমেলা বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন : মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাংলা একাডেমির শহিদ মুনীর চৌধুরী সভাকক্ষে ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০২০’ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হয়। এতে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী গ্রন্থমেলার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

আরও বক্তব্য দেন বাংলা একাডেমির ভারপ্রাপ্ত সচিব ও পরিচালক অপরেশ কুমার ব্যানার্জী, অমর একুশে গ্রন্থমেলা-২০২০-এর সদস্য সচিব ড. জালাল আহমেদ ও স্থপতি এনামুল করিম নির্ঝর।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, চলতি মেলায় ১৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাংলা একাডেমির নিজস্ব বিক্রয় ১ কোটি ৯ লাখ ৭৯ হাজার ৭৩১ টাকা।

মূলমঞ্চের আয়োজন : বিকালে গ্রন্থমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় মিনার মনসুর ও দিলওয়ার চৌধুরী সম্পাদিত ‘শেখ মুজিব একটি লাল গোলাপ’ শীর্ষক গ্রন্থের আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আমিনুর রহমান সুলতান। আলোচনায় অংশ নেন জাহিদুল হক, জাফর ওয়াজেদ ও আসলাম সানী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সম্পদ বড়ুয়া।

আলোচকরা বলেন, বিশুদ্ধ নৈতিকতার অধিকারী বঙ্গবন্ধু নৈতিকতার প্রশ্নে কখনও আপস করেননি। স্বাধীনতার এ মহানায়ক ’৭৫-এর ১৫ আগস্ট সপরিবারে নিহত হওয়ার পর দেশ এক সংকটময় মুহূর্তে উপনীত হয়।

এই নির্মম ও পৈশাচিক হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদের মধ্য দিয়ে জাতির মহাশোককে শক্তিতে রূপান্তরের জন্য সেদিন যাদের কলম সোচ্চার হয়ে ওঠে, তাদের লেখা সংকলিত হয়েছে এ গ্রন্থে। একটি জাতির আত্মত্যাগ ও মূল্যবোধের ইতিহাস জানার জন্য এটি একটি আকরগ্রন্থ হয়ে থাকবে।

কবিকণ্ঠে কবিতা পাঠ করেন কবি জাহিদুল হক, বিমল গুহ ও দুলাল সরকার। আবৃত্তি পরিবেশন করেন আবৃত্তিশিল্পী আঞ্জুমান আরা, ফয়সল আহমেদ ও মৃণ্ময় মিজান। ছিল এ কে আজাদের পরিচালনায় সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘আনন্দন’র পরিবেশনা। সংগীত পরিবেশন করেন বুলবুল ইসলাম, শাহনাজ নাসরিন ইলা, অসীম দত্ত, মীর মণ্ডল, স্বপ্নীল সজীব, পূরবী বিশ্বাস।

লেখক বলছি : ‘লেখক বলছি’ অনুষ্ঠানে নিজেদের নতুন বই নিয়ে আলোচনা করেন শামীম আজাদ, মলয় বালা, আফসানা বেগম ও অরবিন্দ চক্রবর্তী।

স্থাপনা ধারণা প্রদর্শনী : অমর একুশে গ্রন্থমেলা উপলক্ষে স্থাপনা ধারণা প্রতিযোগিতার আয়োজন ছিল এবারের উল্লেখযোগ্য সংযোজন। প্রতিযোগীদের উপস্থাপনকৃত স্থাপনাকর্ম নিয়ে গ্রন্থমেলায় মঙ্গলবার বিকালে একটি প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। উদ্বোধন করেন বিশিষ্ট স্থপতি অধ্যাপক সামসুল ওয়ারেস। উপস্থিত ছিলেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী ও স্থপতি এনামুল করিম নির্ঝর।